অতিবৃহৎ কম্পিউটার ও স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার বলতে কি বুঝায়?

কম্পিউটার দুই বিভিন্ন ধরণে দেখা যায়। একটি অতিবৃহৎ কম্পিউটার ও একটি স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার। অতিবৃহৎ কম্পিউটার হল এমন একটি কম্পিউটার যা কমপক্ষে ১০ মেগাবাইট এর মতো শ্রমবিন্যাস থাকে। একটি প্রধান সার্ভার ও বিশাল ডাটাবেজ সংরক্ষণ করতে পারে যা সহজেই সেটাপ করা যায়।

আর স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার হল সাধারনত নেটওয়ার্ক ইঞ্জিনিয়ারিং এ ব্যবহৃত, এগুলি মানে হল এই ধরনের কম্পিউটার অধিকাংশ সময় বিভিন্ন মজুদ কাজে ব্যবহৃত হয়। এগুলোর সাধারণত ধারণা হল একটি একক বা মাল্টিটাস্কিং সিস্টেম যা আপনার নিজ নিজ গাইজেট, ম্যাকবুক এবং কম্পিউটার এর মধ্যে পরিবর্তনশীল কাজ সহজেই সম্পন্ন করে।

অতিবৃহৎ কম্পিউটার

একটি অতিবৃহৎ কম্পিউটার একটি বেশ সামান্য হিসেবে শুরু হতে পারে এমন জিনিস। কিন্তু এটি নির্ভরশীল এবং বিপুলকারী কাজসমূহ একংশে সম্পাদনে সক্ষম হতে পারে। একটি অতিবৃহৎ কম্পিউটার দ্বারা বিশ্বের নানা অংশে সংশ্লিষ্ট তথ্যের ব্যবস্থা হয়। স্টোরেজ, গণনা, পরিচালনা এবং নেটওয়ার্কিং এসব কাজ একটি অতিবৃহৎ কম্পিউটার দ্বারা সম্পাদিত হতে পারে।

প্রচন্ড উচ্চ গতি, মূল্য এবং বিভিন্ন উপকারিতা নিয়ে অতিবৃহৎ কম্পিউটার একটি সুপারকম্পিউটার হিসেবে জানা হয়। বিপুল সংস্থাগুলি ও ব্যবসায় অতিবৃহৎ কম্পিউটার অথবা সুপারকম্পিউটার ব্যবহার করে বিভিন্ন কাজ সম্পাদনে সক্ষম হতে পারে।

অতিবৃহৎ কম্পিউটার বা পাওয়ার কম্পিউটার

অতিবৃহৎ কম্পিউটার বা পাওয়ার কম্পিউটার হলো এমন কম্পিউটার যা সাধারণ কম্পিউটার থেকে বেশি কিছু ক্ষমতা আর নতুন সুবিধা সরবরাহ করে। এই ধরনের কম্পিউটার অভিজ্ঞতা একটি বিশাল উন্নয়ন যেটি প্রায় সমস্ত উপকারভুক্তদের পাশাপাশি সাড়া দেয়। পাওয়ার কম্পিউটারগুলি বৈশিষ্ট্যমত উচ্চ শক্তিশালী হয়। এরা হাই-এন্ড প্রোসেসর, বড় এবং শক্তিশালী র‍্যাম এবং স্টোরেজ ফ্লপি ডিস্ক সহ ভিন্ন ধরনের উন্নয়নমূলক বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন থাকে।

এছাড়াও এগুলি অতিরিক্ত শক্তিশালী স্ক্রিন এবং জনপ্রিয় গেমিং কম্পিউটার এবং হাই-এন্ড ফটোগ্রাফি তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন থাকে। এই ধরনের কম্পিউটার প্রায় সমস্তই উন্নয়নশীল উপকারভুক্তদের জন্য প্রযোজ্য।

অতিবৃহৎ কম্পিউটার কি বলে জানুন

অতিবৃহৎ কম্পিউটার হল এমন একটি কম্পিউটার যা অনেকগুলো সিস্টেম র‌্যাক থেকে গঠিত। এটি একই টাইমে অনেকগুলো প্রসেসর, মেমোরি, ডিস্ক এবং নেটওয়ার্কিং ইউনিট টিকে সমরস করতে পারে। এটি বিশাল এবং স্কেলাবল হতে পারে এবং অনেক বড় ডেটা সেট এবং কম্পিউটেশনাল প্রক্রিয়া করতে এটি ইউজ হয়। অতিবৃহৎ কম্পিউটার একটি অসাধারণ প্রযুক্তি, যা বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনেক উপকার সরবার করতে পারে।

See also  চার্লস ব্যাবেজকে আধুনিক কম্পিউটারের জনক বলা হয় কেন?

যেমন জেনে নিন, এই প্রযুক্তি সেটি যা ইন্টারনেট কম্পানিগুলি একটি শক্তিশালী সার্ভার চালায়। স্তুতি অতিবৃহৎ কম্পিউটারগুলির সামনে বিভিন্ন সমস্যা আছে, যদিও এদের মূল উদ্দেশ্য একটি জটিল কম্পিউটেশন বা ডেটা প্রসেসিং সম্পন্ন করা। সংক্ষেপে বলা যায় যে অতিবৃহৎ কম্পিউটার সম্পূর্ণ পারফরম্যান্স উন্নয়নের সাথে সাথে বিভিন্ন সেটিংয়ে ব্যবহার করা যায়।

অতিবৃহৎ কম্পিউটার কত টাকায় পাওয়া যায়

শুরুতেই বলে নেওয়া যায় যে অতিবৃহৎ কম্পিউটার আসলে এমন একটি কম্পিউটার যা সাধারণ কম্পিউটারের চেয়েও মাথাবরচা ও বড়। এটি একধরনের সুপারকম্পিউটার যা শক্তিশালী হার্ডওয়্যার ও অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করে তৈরি করা হয়। একদিকে এটি একটি বিশাল ফাইল স্টোরেজ ও বিগ ডেটা প্রসেসিং ক্ষমতা সম্পন্ন। তবে এটি একটি খুবই মহগা কম্পিউটার।

আমরা হাল কালে টেক ওয়ার্ল্ডে বিভিন্ন ধরনের বিশাল কম্পিউটার দেখতে পারছি সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হল সুপারকম্পিউটার এবং ক্লাউড কম্পিউটিং সি পি ইউ । অতিবৃহৎ কম্পিউটারের দাম বিভিন্ন টেক কোম্পানি প্রকাশ করে থাকে, তবে সাধারণত সেটির দাম লাখ লক্ষ করে পরিমাণ করা যায়। তবে দেশে অনেক সার্বজনীনভাবে বিক্রির জন্য কমদামী অতিবৃহৎ কম্পিউটার পাওয়া যায়।

স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার

এক্সট্রা স্পেস বা কম স্পেস সমস্যার কারণে যখন ডেস্কটপ বা ল্যাপটপ দুইটার ব্যবহার মিশে যায় তখন একটি স্ট্যান্ডনিং ডেস্ক কিনলে খুব সমস্যাই হ্রাস করা সম্ভব। এখন সেই প্রযুক্তিতেই কম্পিউটার ব্যবহারের অনেক পদ্ধতি আছে। এর মধ্যে স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটারও একটি জনপ্রিয় উপায়। এই ধরনের কম্পিউটারের বেশিরভাগ মডেল সহজভাবে পোর্টেবল হওয়ার কারণেই তার ব্যবহার খুবই সহজ হয়ে থাকে।

এটি আপনার শরীরের নির্দিষ্ট অংশের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ আঙ্গুলের পর্যাস বা আপনার মনোযোগ পরিস্থিতির মানে বাদদশী আচরণের ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অনেক কাজে আসে। সাথেই এই ধরনের কম্পিউটারটি দেখতে খুব আকর্ষনীয় ও সুন্দর লাগে।

স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার কি?

স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার হল একধরণের কম্পিউটার যা একটি আলাদা হার্ডওয়্যার এবং নিজস্ব সফটওয়্যার ব্যবহার করে যায়। এই কম্পিউটারগুলি একটি কাজকর্মের জন্য নির্দিষ্ট হয় এবং তার নির্দিষ্ট কাজের জন্য তৈরী করা হয়। স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটারগুলি সাধারণত একটি মনিটর, একটি কীবোর্ড এবং একটি মাউস সহ থাকে। একটি স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার ব্যবহার করে সাধারণত সার্কানশিয়াল কাজ করা হয় যার ফলে পাশাপাশি কর্মীদের দোকানের প্রবাহ এবং ভালো হয়ে থাকে।

See also  কন্ট্রোল ইউনিটের কাজ কি? ড্রাগিং এন্ড ড্রপিং বলতে কী বোঝায়?

এই কম্পিউটারের অনেক উপকারিতা আছে, যেমন স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার ব্যবহার করে পার্টির সেটিং করা যায় এবং এটি কম্পিউটার সাধারণ এক্সেস থেকে নিরাপদ। এই প্রকারের কম্পিউটারে সাধারণত সি প্রোগ্রামিং ভাষা ও বাংলাদেশী কাজ করা হয়।

কেন স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়

স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার হল একটি কম্পিউটার যা স্পেস সেভ করার জন্য ডেস্ক ব্যবস্থার টপে রাখা যায়। এর মাধ্যমে একজন ব্যবহারকারী সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া চালু করতে পারেন যা যে কম্পিউটারের অন্যান্য স্থানান্তর ব্যবস্থার দ্বারা সম্ভব না। সাধারণত এই ধরনের কম্পিউটারে একটি কম্পিউটার সিন্টাক্স হতে পারে এবং একটি লার্জ স্ক্রিন হয় সেটি ব্যবহার করে। স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার প্রি লোডড হতে পারে এবং স্পেস এবং মূল্য সংগ্রহের সুবিধা দেয়।

অনেক কম্পানি স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার ব্যবহার করে একজন ব্যবহারকারীর কাজের প্রস্তুতি আরামদাই করে। এটি খুব স্পেশালাইজ্ড কাজকে অনেকটা সহজ করে তুলে দেয়।

স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটারে কোন অন্যতম বৈশিষ্ট্য রয়েছে?

স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার হল এমন একটি কম্পিউটার যা দেখতে একটি অসাধারণ মনোহর ও দর্শনীয় সামগ্রী। এই কম্পিউটারের একটি বৈশিষ্ট্য হল এর ব্যবহারকারীদের সর্বোচ্চ সুবিধা এবং সুবিধা বিনিময় দেওয়া। স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার যেমন একটি মোবাইল ফোন অথবা ল্যাপটপের মত, কিন্তু এই কম্পিউটারের একটি সামান্য স্পিকার উপাদান রয়েছে যা ব্যবহারকারীর সাথে কথা বলতে সাহায্য করে। এছাড়াও, স্ট্যান্ড-এ্যালোন কম্পিউটার দ্রুতগতিতে কাজ করতে এবং এই সিস্টেমে নিরাপদ রয়েছে তার ব্যবহারকারীর জন্য সম্ভব হবে না।

কম্পিউটার ভিন্ন ভিন্ন মডেলে ও কম্পিউটারের বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের সাথে সর্বদা নতুনত্ব এবং নতুন প্রযুক্তি যুক্ত হয়ে থাকে।

Leave a Comment