অ্যানালগ কম্পিউটার: এটি কী? কিভাবে কাজ করে?

অ্যানালগ কম্পিউটার হল একধরনের কম্পিউটার সিস্টেম যা ডিজিটাল কম্পিউটার নয়। এটি একটি যন্ত্রপাতি যা আপনি হাতে ধরে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। আপনি যখন জিনিস গবেষণ করছেন তখন ফিল্ম নেগেটিভের মতো পদতালে গেলে আপনার সাথে খেলা করবে এ সিস্টেম। একটি অ্যানালগ কম্পিউটার প্রচলিত হয় একটি অপারেশন সিস্টেমের মাধ্যমে।

আপনি একটি কম্পিউটারের মধ্যে একাধিক রকমের ডিভাইসে ফিজিকাল প্রয়োজন হতে পারে, একটি টেপ রেকর্ডার, এভাবে আলাদাভাবে কাজ করে। মানুষের মতোই এই যন্ত্রপাতি প্রক্রিয়া সহজ করতে উপযুক্ত যন্ত্রপাতি মূলত সেন্সর বা মিক্রোফোনের মাধ্যমে সুবিধাজনক দেখাচ্ছে। এই প্রক্রিয়া সেন্সরের মাধ্যমে করে যায় এবং সেই তথ্য অপ্রতিস্থাপিত একটি টেবিলে সংরক্ষিত হয়। কেউ যদি অ্যানালগ সিস্টেম বা ইলেকট্রনিক ডিভাইস সিস্টেমে বেশি জ্ঞানী না হওয়া পর্যন্ত নিজে দ্বিতীয় হাত দিয়ে সেই সিস্টেমকে নিয়ন্ত্রণ করার প্রাথমিক জ্ঞান থাকলেও এটি ব্যবহার করা যাবে এমন না।

অ্যানালগ কম্পিউটারের সাধারণ পরিচিতি

অ্যানালগ কম্পিউটার হল এমন একটি প্রযুক্তি যেখানে ডিজিটাল কম্পিউটারের মতো সিগনালগুলোর ব্যবস্থার বদলে একটি পরিবর্তিত কমপ্লেক্স তথ্য নামক সিগনালসমূহ তৈরি করা হয়। অ্যানালগ কম্পিউটার দিন সফলতার পেছনে সেই সময়ে ব্যবহৃত সুক্ষ্ম এবং বৃহৎ পারিতল সিস্টেমের ব্যবহার নিয়ে কাজ করে। সে সময়ে টেলিকমিউনিকেশন, ক্ষুদ্র এবং মাঝারি সাইজের সার্ভকুম্পানিগুলো, বাণিজ্যিক উদ্যোগ, নৌবাহিনী ইত্যাদি সেরা মানের কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকতেন। এখনও এই প্রযুক্তি চলমান রয়েছে এবং উন্নয়নের পাশাপাশি নতুন ক্ষেত্রে নির্ভরশীল হচ্ছে।

এই প্রযুক্তিতে আদিকাল এবং আধুনিক সবচেয়ে বিরলতম সিস্টেম হল হিউম্যান ব্রেন। এটি একটি কম্পিউটারের বিশেষজ্ঞদের কাজে সহায়কী হিসেবে ফাংশন করে এবং মানুষের মতো সিগনাল নিয়ে কাজ করে যা ডিজিটাল সিগনাল ব্যবহার করে না।

অ্যানালগ কম্পিউটার কি?

অ্যানালগ কম্পিউটার হল একধরণের কম্পিউটার যা ডিজিটাল কম্পিউটারের মতো সংখ্যার আঁকারে অবস্থান নেয় না। এই ধরণের কম্পিউটার আলোচিত সংখ্যাগুলি না বরং দূরবর্তী উপকরণে একটি ভোল্টেজ বা ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে কার্যকরী হয়। অ্যানালগ কম্পিউটার কেন্দ্রীয় প্রসেসর, মেমরি এবং আউটপুট ডিভাইস ব্যবহার করে কাজ করে। এই কম্পিউটারে তথ্য স্টোর করা যায় না এবং তার প্রক্রিয়া কোন প্রতিনিধিত্ব নেই।

একটি অ্যানালগ কম্পিউটার একটি স্পেশালাইজড কম্পিউটার হিসাবে ব্যবহৃত হয় এবং ধনী সংস্থা এবং শহরের পরিষেবা গ্রহণকারী সরকারি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সাধারণতঃ ব্যবহৃত হয়। একটি অ্যানালগ কম্পিউটার হালকা হওয়ার কারণে দ্রুত ক্রিয়াশীল এবং বিশ্বস্ত কম্পিউটারের মধ্যে থাকা একটি পলটভাবে কাজ করে।

অ্যানালগ কম্পিউটারের উদ্দেশ্য কী?

অ্যানালগ কম্পিউটার একটি বিশেষ ধরণের কম্পিউটার যা সংখ্যাগুলির আনলিমিটেড রেঞ্জে কাজ করতে পারে। মূলত এই কম্পিউটারটি একটি স্কেলার প্রোসেসর এর মতো ব্যবহার করা হয়। এই প্রক্রিয়াটি ছক, আলো, সময়, সংখ্যা এবং অন্যান্য পরিমাণগুলি নির্দিষ্ট করার জন্য ব্যবহৃত হয়। একইভাবে, এই কম্পিউটার সাধারনত মিউজিক রেকর্ড এবং জনপ্রিয় ভিন্ন প্রকার অডিও ফরম্যাট সম্পাদন করতে ব্যবহার করা হয়।

সাধারণত, অ্যানালগ কম্পিউটার বিনামূল্যে প্রতিষ্ঠিত প্রযুক্তিগুলি প্রয়োগ করে উন্নয়নশীল এবং উন্নয়নশীল কৌশল সম্পর্কে পার্থক্য তৈরি করে। এছাড়াও এটি কম্পিউটার গবেষণার জন্য উন্নয়নশীল সরঞ্জামের একটি প্ল্যাটফর্ম হিসাবে ব্যবহার করা হয়, যা নতুন টেকনোলজিগুলির বিকাশে মানকমন ও পরীক্ষা করতে সহায়তা করে। সংকলিত করা সেটিং এবং সঙ্গে প্রদান করা সম্পূর্ণরূপে অ্যানালগ কম্পিউটারের উদ্দেশ্য হল সবকিছুই আরো সহজ এবং কার্যকরী করা। এটি সাধারণত কম দরকারি তথ্য প্রক্রিয়াকরণের কারনে ব্যবহৃত হয় এবং এটি একটি নিরাপদ এবং কার্যকর রাস্তা হিসাবে সম্পর্কশীল ব্যবহারকারীদের সেবা করে।

এছাড়াও, এটি স্মার্ট হোম বা অফিস প্রযুক্তি পরিস্থিতিতে খুব গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রভাবশালী হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

অ্যানালগ কম্পিউটার এর গণনা শক্তি কি ভাবে নির্ণয় করা হয়?

অ্যানালগ কম্পিউটার হল একধরনের কম্পিউটার যা ছবি, ভিডিও, ওডিও ইত্যাদি ডিজিটাল রূপে কনভার্ট করে না। বরং সেগুলো অ্যানালগ সিগনালে রাখে। এই সিগনাল গুলোকে সরাসরি অ্যানালগ ভাবে প্রক্রিয়া করে কম্পিউটারটি ফলাফল প্রদর্শনের জন্য ব্যবহার করে। এই কম্পিউটারগুলি মূলত সংজ্ঞায়িত কাজ এবং নিশ্চিত রূপে উত্পাদিত কাজ গুলির জন্য ব্যবহৃত হয়।

অ্যানালগ কম্পিউটারের গণনা শক্তি নির্ণয় করার জন্য একটি ফর্মুলা ব্যবহার করা হয়। এই ফর্মুলা হল- কম্পিউটারের কাজকর্ম গতি এবং পরিকল্পনার ভিন্নতা উভয়ই গণনা করে। এরপর এগুলো একত্রিত করে গণনা করা হয়। সাধারণত অ্যানালগ কম্পিউটারের গণনা শক্তি কম হয়ে যায়।

অ্যানালগ কম্পিউটারের গণনা শক্তি একটি জটিল বিষয় যা একটি ফর্মুলার সাহায্যে নির্ণয় করা যায়। কিন্তু এই কম্পিউটারের ব্যবহার নিষিদ্ধ হচ্ছে না। নির্দিষ্ট কাজগুলির জন্য অ্যানালগ কম্পিউটারের ব্যবহার উচিত হতে পারে। যেমন- ধাপে ধাপে গতি বা তাপমাত্রা পরিমাপ করার জন্য অ্যানালগ কম্পিউটার ব্যবহৃত হয়।

তাছাড়া অ্যানালগ কম্পিউটারের জন্য অতিরিক্ত কাজ করার জন্য অনেক কম্পিউটার উপকরণ উপলব্ধ থাকে না। মূলত এটি কিছু নির্দিষ্ট কাজে উপযুক্ত।

অ্যানালগ কম্পিউটার এর উদাহরণ

অ্যানালগ কম্পিউটার হল এমন একটি ধরনের কম্পিউটার যেখানে সমস্ত তথ্য একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় রয়েছে। এই কম্পিউটারগুলোতে ডিজিটাল সিস্টেম নেই এবং তারা মৌলিকভাবে হাইফাই স্ট্রিম এবং ফিডব্যাক স্লো কার্যকরী করে। উদাহরণস্বরূপ, ইউএসএ নেভির অ্যাম্পের জন্য নির্মিত AN/SPN-35 রেডার অ্যানালগ কম্পিউটারের উদাহরণ হতে পারে। এটি সমস্ত তথ্য সরবরাহ করে এবং দির্ঘস্থায়ী প্রতিবেদন জারি করে।

See also  কম্পিউটার (Computer) কি? কম্পিউটারের কাজ, বৈশিষ্ট্য, সুবিধা এবং ব্যবহার।

প্রায় সমস্ত রেডার ইংরেজি এবং ম্যাট্রিক্স প্রোগ্রামিং ব্যবহার করে কাজ করে, কিন্তু AN/SPN-35 অ্যানালগ সিস্টেমের সাথে তাঁর কার্যকারিতা পরিচালনা করে। অ্যানালগ কম্পিউটারগুলো কিন্তু প্রায়শই বিশেষ কাজ করে যেমন ঝাঁকড়া এর জন্য স্পিড মাপণ এবং উচ্চতা মাপণের জন্য ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও একটি উদাহরণ হতে পারে টেলিফোন কোম্পানির কাজকর্তাদের কর্মসূচি প্রকাশে লিখিত একটি তালিকার উপর আধারিত একটি কম্পিউটার। এক্ষেত্রে ডিজিটাল প্রক্রিয়াকে প্রকাশ প্রদান করার আগে অ্যানালগ কম্পিউটার ব্যবহার করে কর্মসূচি তৈরি করা হয়।

সর্বশেষ, এই টেকনোলজি ব্যবহার করে বিভিন্ন শাখার জন্য সফল সমাধান সম্ভব হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, রেডিও পাঠানো ফেজরেজ জন্য একটি অ্যানালগ কম্পিউটার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এর মাধ্যমে দরকারিভাবে সমস্যার সমাধান করা হয় এবং হাইফাই এবং লাউফার সমাধানের উত্তম ফল প্রাপ্ত হয়। সোমবার, নভেম্বর ৫, ২০১৮।

অ্যানালগ কম্পিউটার ব্যবহারের কারণ

অ্যানালগ কম্পিউটার হল এমন একটি কম্পিউটার যা ডিজিটাল নয়। এতে তথ্য নম্বর রূপে নয় বরং সংখ্যার আকারে দেওয়া হয়। এটি একটি সাধারণ যন্ত্র নয় এবং শুধুমাত্র গণিতশাস্ত্রে ব্যবহৃত হয় না। অ্যানালগ কম্পিউটারের ব্যবহার বিভিন্ন কারণে এখনও বিপন্ন।

একটি কারণ হল যে, যেহেতু এটি হল একটি পুরানো পদক্ষেপ, তাই এটি সাধারণ বর্গীকরণ, চিত্রাঙ্কন, তাপমাত্রা এবং পরিমাপ এ ব্যবহৃত হয়। আরেকটি কারণ হল যে, এর মাধ্যমে হালকা এবং সরল কম্পিউটেশন করা যায়। এটি সেন্সরের মাধ্যমে তাপমাত্রার মাপন নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে অত্যন্ত স্বাভাবিক হয় এবং সমস্যাগুলি দ্রুত সমাধান করতে সক্ষম। সামগ্রীগুলিকে ছাত্রদের প্রাকদর্শন দেওয়ার হাত ছাড়াই প্রাকদর্শনবিদদের জন্য এটি পর্যবেক্ষণকৃত দূরবর্তী চলচ্ছবি তৈরি করতে ব্যবহার করা হয়, যা নকল বা ফাঁদের জন্য ব্যবহার করা যাওয়া সম্ভব নয়।

এছাড়াও অ্যানালগ কম্পিউটার বিদ্যুৎ সেন্সর ব্যবহার করে পানি এবং তাপমাত্রার নির্ভরযোগ্য পরিমাপ করতে চায়। একটি অ্যানালগ কম্পিউটার প্রকৃত পরিবেশকে স্পর্শ করতে পারে এবং পুরো বিশ্বে এটি পুরানো পদক্ষেপ হিসাবে কম্পিউটার ইতিহাসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উদাহরণ।

অ্যানালগ কম্পিউটার কাজ করার নিয়ম

অ্যানালগ কম্পিউটার হলো এমন কম্পিউটার যা পূর্বের জেনারেশন কম্পিউটারের মত হেনাফ করে কাজ করে। এই কম্পিউটারে তথা অ্যানালগ ডিভাইসে তথ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ করা হয়। এর মাধ্যমে শব্দ, ছবি, ভিডিও এবং অডিও সহ অণুকাঠিত তথ্য পরিবর্তন করা হয়। ফলে এই কম্পিউটারের একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো সিগনাল প্রক্রিয়াজাতকরণ যার মাধ্যমে অণুকাঠিত শব্দ এবং অডিও তথ্য সঙ্গে কাজ করে।

অ্যানালগ কম্পিউটারের ইনপুট সম্পর্কিত উপাদানগুলি স্পষ্ট নয় যা একাধিক প্রকল্পে সম্ভবত ট্রিকি হয়। এই কম্পিউটারের প্রক্রিয়াজাতকরণ সম্পর্কিত নিয়মগুলি সহজ নয় কারণ এগুলি একটা উপস্থাপনের মাধ্যমে বোঝানো কঠিন। সম্ভবত এটি নতুন ব্যবহারকারীদের জন্য কঠিন হয়।

অ্যানালগ কম্পিউটার কাজ করার পদক্ষেপ

অ্যানালগ কম্পিউটার কাজ করার নিয়ম সম্পর্কে আলোচনা করা হল। একটি অ্যানালগ কম্পিউটারে, ডিজিটাল কম্পিউটারের পরিপূর্ণ বিপরীতে, তথ্য সংগ্রহ এবং প্রক্রিয়াকরণ অনলাইনে হয়। কম্পিউটার ভিন্ন ভিন্ন ফিজিকেল কম্পনেন্ট ব্যবহার করে তথ্য প্রক্রিয়া করে। সাধারণত, একটি অ্যানালগ কম্পিউটারে বিদ্যমান কিছু বিশেষ উপাদান রয়েছে, যা ডিজিটাল কম্পিউটারে নেই, যেমন ট্রানজিস্টর, কন্ডেন্সার, ইনডাক্টর ইত্যাদি।

বিশেষত শক্তি সংগ্রহ এবং বিদ্যুৎ তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে অ্যানালগ কম্পিউটার খুব আচর্য জনক উপাদান ব্যবহার করে। তাই নির্দিষ্ট সময়ে কিছু ব্যাপারে অ্যানালগ কম্পিউটারকে ব্যবহার করা হয়। উদাহরণস্বরূপ, যখন সিমুলেশন নির্দিষ্ট পেশাদার বা বৈজ্ঞানিক গবেষণা করা হয় তখন সে কাজ করার জন্য অ্যানালগ কম্পিউটার ব্যবহৃত হয়।

অ্যানালগ কম্পিউটার একটি উদাহরণ দিয়ে বিস্তারিত করা

অ্যানালগ কম্পিউটার হল যে কম্পিউটার সিস্টেম যা অ্যানালগ সংখ্যা ব্যবহার করে কাজ করে। অ্যানালগ কম্পিউটার সেমিকন্ডাক্টর, ট্রানজিস্টর এবং ক্যাপ্যাসিটরস এর মতো উপাদান ব্যবহার করে সিগনেলগুলির প্রতিনিধিত্ব করে করে। এই কম্পিউটারগুলির কাজ করার নিয়ম আমরা একটি উদাহরণ দিয়ে বিস্তারিত করতে পারি। যেমন ভাবলেন, আমরা যদি একটি অ্যানালগ কম্পিউটার ব্যবহার করে একটি সিনুসয়েডাল সিগনেল গেনারেট করতে চাই, তখন আমরা একটি সিনুসয়েডাল আউটপুট পেতে পারি যেটি সুইপিং ফ্রিকোয়েন্সির সাথে তাল মিলিয়ে যায়।

একটি ঘটনামূহ উপস্থাপন করতে হয় যা সিস্টেমে কনভার্ট করা যেতে পারে। একটি ফর্মুলা ব্যবহার করে সবকিছু হিসাব করে একটি ডেটা সংখ্যাকে কনভার্ট করা হয়। অ্যানালগ কম্পিউটারের উদাহরণগুলি সম্পর্কে আরো জানতে চাইলে, অনুগ্রহ করে দ্রুত শেষ করে দেখে নিন।

অ্যানালগ কম্পিউটার ব্যবহারের উপকারিতা

অ্যানালগ কম্পিউটার হলো এমন একটি কম্পিউটার যা ডিজিটাল কম্পিউটার থেকে ভিন্নতা লেখা হতে পারে। এটি ব্যবহার করে হালকা কাজগুলি খুব সহজে সম্পাদিত করা যায়। অ্যানালগ কম্পিউটার খুবই সুবিধাজনক এবং গাড়ি, তোপ, ফুটবল ইত্যাদি সামগ্রী পরীক্ষা করতে এবং তার পারফরমেন্স ভালো বুঝতে ব্যবহৃত হয়। ডিজিটাল কম্পিউটারের মত যেমন এই কম্পিউটারের প্রত্যেকটি ভ্যালু দশমিক হতে পারে, একইভাবে এই কম্পিউটারের ভ্যালু একটি স্পেসক্যাপ টিন মানের উচ্চতা থেকে বেশি হতে পারে।

See also  জিপ (Zip) ফাইল বলতে কি বুঝায়?

অ্যানালগ কম্পিউটার শক্তিশালী হওয়ায় বিজ্ঞাপন ও ব্যাবসায়িক উদ্যোগে এটি দ্বিতীয় সেরা বিকল্প হিসাবে ব্যবহৃত হয়। কম্পিউটার এবং উদ্যোক্তা সাক্ষাৎ থাকতে পারে কারণ একটি সমস্যা না হলেও অ্যানালগ কম্পিউটার পূর্ব ডিজিটাল সুবিধাগুলির সাথে ফাঁকা ঠিকানা পূরন করতে পারে। এই কম্পিউটার ব্যবহার করে বড় চালানো প্রকল্প ও প্রতিষ্ঠানের চিন্তা শুধু সহজ হবে না এবং এটি শিল্প বাণিজ্যে, আঁশ ও কার্বনিক ছাদ উন্নয়নে ব্যবহৃত হয়। সুতরাং, অ্যানালগ কম্পিউটার প্রয়োজন মানে দেখা যায়।

সকলেই ডিজিটাল কম্পিউটার এর উপর ব্যর্থ না হওয়া মাঝে-মাঝে অ্যানালগ কম্পিউটার ব্যবহার করে প্রকল্পগুলি এবং পরীক্ষামূলক উদ্যোগের সম্মানিত হওয়া সম্ভব।

অ্যানালগ কম্পিউটার এবং ডিজিটাল কম্পিউটারের তুলনা

অ্যানালগ কম্পিউটার এবং ডিজিটাল কম্পিউটার দুটির মধ্যে একটি সম্পূর্ণ পার্থক্য হল প্রসেস করার নিয়ম। অ্যানালগ কম্পিউটার সংখ্যাগুলির নির্দিষ্ট ভ্যালুতে বিভক্ত হয় এবং এর কাজ করার নিয়মও সংখ্যাগুলির উত্স থেকে আসতে হয়। এর কারণে সামান্য ত্রুটি বা ত্বক্ষতা সহ্য না করতে পারে এবং এটি দুটি সংখ্যার মধ্যে বিজ্ঞানষ্ট্রীক কাজ করতে অসুবিধা হতে পারে। এর বিপরীতে, ডিজিটাল কম্পিউটার সংখ্যাগুলির বাইনারি সিস্টেমে বিভক্ত হয় এবং এর কাজ করার নিয়ম তার প্রোগ্রামের উপর ভিত্তি করে অনুষ্ঠিত হয়।

স্থির সংখ্যার বিপরীতে, বাইনারি সংখ্যাগুলি খুব সহজে প্রসেস করা যায় এবং এর ফলস্বরূপ ত্রুটি অত্যন্ত কম। আর উপরে ভিত্তি করে প্রোগ্রাম রান করার জন্যে, একটি স্পেসিফিক কনফিগারেশন আপনাকে দিতে হয় তার উপর ভিত্তি করে এবং এটি ফলস্বরূপে ঝামেলা কম রাখে। সমস্তটির মাঝে পাঠকের জন্য কি প্রয়োজন তা বিবেচনা করে ডিজিটাল কম্পিউটারের ব্যবহার আজকে বেশ কম ব্যবহৃত হয় না। তার পেছনে একটি আরও উন্নয়নশীল প্রযুক্তির উদ্ভাবন রয়েছে যা হচ্ছে কোয়ান্টাম কম্পিউটার।

অ্যানালগ কম্পিউটার কিভাবে ডিজিটাল সিস্টেম কে মিলিত করে নেয়

অ্যানালগ কম্পিউটার হল সেই কম্পিউটার যা সবকিছুই এনালগ ফরমে সম্পাদন করে। ধরুন, কোন চিন্তা করতে হল তাহলে এনালগ কম্পিউটারে সেটাকে সাধারণ ভাষায় যথেষ্ট নির্দিষ্টভাবে বলতে হবে। আর সেটাকে ডিজিটাল সিস্টেম কে মিলিত করে নেয় ডিজিটাইজেশন এবং কম্পিউটার ভাষায় কনভার্ট করে নেয়া হল। এক্ষেত্রে কম্পিউটার সেটাকে ০ এবং ১ দ্বারা ভাষান্তর করে নেয়।

এই ভাষান্তর এবং ডিজিটাইজেশনের একজন্য ডিজিটাল কম্পিউটার অনেক বেশি ভাল এবং সহজ হল। কিন্তু যদি আপনার নিয়মিত কাজ হয় এনালগ কম্পিউটার ব্যবহার করে তাহলে ডিজিটাল কম্পিউটার তুলে ধরতে কঠিন হতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে এনালগ কম্পিউটারের জন্য উপযোগী কাজ হল সংশ্লিষ্ট ডিজিটাইজেশন প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে সেটাকে ডিজিটাল মড এ কনভার্ট করা। এভাবে কম্পিউটারের ব্যবহার সহজ হতে পারে এবং প্রসেসর কাজ করে তা ডিজিটাল মড এ প্রদর্শন করতে পারে।

অ্যানালগ কম্পিউটারের ব্যবহারে কী কর্মক্ষমতা প্রয়োজন

অ্যানালগ কম্পিউটার হল একটি যন্ত্র যা সংখ্যাগুলি না বরং ভইসে তথা অ্যানালগ চালিত চিপ দ্বারা কাজ করে। এটি মূলত একটি অ্যানালগ কার্ডিং মেশিন বা এনালগ কম্পিউটার সিস্টেম যা প্রথমে মানুষ দ্বারা ব্যবহৃত হতো রিলেভেন্ট তথ্য শেষ করে দেখেয়। এই প্রক্রিয়াটি জ্যামিতি নামে পরিচিত। অ্যানালগ কম্পিউটার একটি কম্পিউটার তবে এটি মূলত জ্যামিতি নির্ভর।

যেহেতু এটি অয়স ব্যবহার করে, আবার মনিটর প্রদর্শন করে না, অ্যানালগ কম্পিউটারের ব্যবহারকারীকে একটি জ্ঞানের সেট প্রদান করতে পারে যা সংখ্যার পাশাপাশি নিজেকে সম্পূর্ণ লোকপ্রিয় করতে পারে।

অ্যানালগ কম্পিউটারের ভবিষ্যৎ

অ্যানালগ কম্পিউটারের ভবিষ্যতের বিষয় নিয়ে আলোচনা করার আগে আমরা জানতে হবে অ্যানালগ কম্পিউটার কীভাবে কাজ করে। অ্যানালগ কম্পিউটার নতুন নয়, আমদানির আগ থেকেই এই কম্পিউটারগুলো ব্যবহার হয়। এই কম্পিউটারগুলো এনআইএম ভিশন ও ডিজিটাল কম্পিউটারের মতো হিসেব করতে পারবে না। এদিকে এই কম্পিউটারগুলো অ্যানালগ ইলেকট্রনিক্স হিসেবেও পরিচিত।

এই কম্পিউটারের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো এটি কোনও ডিজিটাল সংখ্যা বা উপাদানকে না ব্যবহার করে গণনা করে যায়। সর্বোচ্চ সংখ্যা পর্যন্তও কম্পিউটারে কাজ করা যায়। এখন আসা যাক, অ্যানালগ কম্পিউটারের ভবিষ্যতের কথায়। এ কম্পিউটারটির বিষয়ে প্রচলিত মতামত হলো এই কম্পিউটারের সামনের দিক খুবই সম্ভবত সীমিত হবে।

কারণ, এটি সংখ্যাগত হিসেব না করে গণনা করতে পারে। এ কারণে এর প্রয়োজনীয়তা কম হবে এমনটি মনে হচ্ছে। তবে, এই কম্পিউটারগুলো এখনও কিছু সেটরগুলোতে ব্যবহৃত হচ্ছে। উদাহরণস্বরূপ, কম্পিউটার নেভিগেশন সিস্টেম এবং প্রতিবেদন তথ্য প্রক্রিয়াকরণ সেট এখনও অ্যানালগ কম্পিউটারে পরিচয়প্রদ।

এ পর্যন্ত অ্যানালগ কম্পিউটারের জগতের সামনের দিকটা দেখলে আস্থা এবং সাপেক্ষে কম প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। তবে, আগামী দিনে কি হবে তা আরেকটু বেশি আলোচনা নির্ভর করে। একটি কম্পিউটার প্রযুক্তিতে সময় এবং প্রযুক্তির শুধুমাত্র কিছু নয়। আমরা নিশ্চিত যে, ভবিষ্যে আমরা আরও উন্নত এবং সাদৃশ্যশীল অ্যানালগ কম্পিউটার দেখতে পাব।

Leave a Comment