জেনে নিন আম খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

জেনে নিন আম খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

স্বাস্থ্য

আম খেতে ভালোবাসেন না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। পাকা ও কাঁচা এই দুইধরনের আমই সবার পছন্দের তালিকায় রয়েছে। পাঁকা আম যেমন খাওয়া যায় তেমনই কাঁচা আমও খেতে পারেন । আমাদের দেশে কাঁচা আমের আচার বেশ জনপ্ৰিয় । সবাই কম বেশি আমের আচার খেতে ভালোবাসেন । তাছাড়া কাঁচা আম গরমের সময় অনেকেই কেটে মাখিয়ে খান। আর পাঁকা আমের তো পছন্দের জুড়ি নেই। স্বাদে ঘ্রানে অতুলনীয় এই ফলটি । শুধু স্বাদ আর ঘ্রানে নয়, আম প্রচুর পুষ্টিগুণে ভরপুর । ফলটিতে রয়েছে শরীরের জন্য উপকারী নানান পুষ্টি উপাদান। পুষ্টিবিদের মতে, আম নানান পুষ্টিগুণে ভরপুর যা শরীর সুস্থ রাখে এবং কর্মশক্তি যোগাতেও বিশেষ ভুমিকা রাখে । তাই আমের মৌসুমে সবাই নির্ধিদায় পাকা ও কাঁচা দুটোই খেতে পারেন।

১) আমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা আমাদের শরীরকে কোলন, স্তন, প্রোস্টেট, লিউকেমিয়া ইত্যাদি ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে।

২) আমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, পেকটিন, ভিটামিন সি এবং অন্যান্য উপাদান যা কোলেস্টেরলের মাত্রা ভারসাম্য রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৩) আম ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। আম ব্রণ এবং অন্যান্য অনেক ত্বকের সমস্যা প্রতিরোধ করতে কার্যকর ভুমিকা পালন করে।

৪) আম ভিটামিন এ সমৃদ্ধ, যা দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও চোখের চারপাশের শুষ্কতা দূর করে। একটি আম আমাদের শরীরকে প্রায় 25 শতাংশ ভিটামিন এ এর ঘাটতি পূরণ করে। যা চোখের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়।

৫) আম এ রয়েছে প্রচুর পরিমান টারটারিক এসিড, ম্যালিক এসিড, সাইট্রিক এসিড এর মতো উপাদান যা শরীরকে অনেক রোগ থেকে রক্ষা করতে কার্যকর ভুমিকা পালন করে ।

৬) আম মিষ্টি জাতীয় ফল হলেও এতে রয়েছে প্রচুর ফাইবার যা রক্তে সুগার মাত্রা বজায় রাখে। আমাদের সুগার লেভেলকে মোটেই বাড়তে দেয় না এবং ডায়বেটিস নিয়ন্তন থাকে। নির্ধিদায় পরিমান মতো আম খেতেই পারেন । তবে এ বিশেষজ্ঞদের মাঝে মতোবিরোধ রয়েছে । বেশির ভাগ বিশেষজ্ঞ খাওয়া যাবে বলেছেন । আমে যেমন চিনি পরিমান রয়েছে তেমনি চিনি তুলনায় ফাইবার বেশি রয়েছে । তাই খেতেই পারেন পরিমান মতো আম ।

৭) আমার প্রচুর ভিটামিন ই আছে। যা আমাদের যৌন জীবনকে আরও উন্নত করে। তাছাড়া আম পুরুষের শুক্রাণুর মান ভালো রাখতে বিশেষ ভুমিকা রাখে ।

৮) আমে রয়েছে প্রচুর পরিমান ফাইবার যা হজমের সমস্যা দূর করতে কার্যকর ভুমিকা পালন করে এবং হজমশক্তি বাড়ায়। এছাড়া কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে ।

কাঁচা আমের উপকারিতা:-

৯) কাঁচা আম জুস করে খেলে শরীরকে ঠান্ডা রাখে এবং অতিরিক্ত গরমের জন্য হিট স্ট্রোক হওয়ার হাত থেকে আমাদের রক্ষা করতে সাহায্য করে । কাঁচা আম শরীরের শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দুপুরের খাবারের পর কাঁচা আম খেলে বিকেলের তন্দ্রাভাব কাটে। কাঁচা আম মাড়ির জন্য ভালো। দাঁত ক্ষয় এবং রক্তপাত প্রতিরোধ করে। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়।

১০) আম সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটাই করে। আমে রয়েছে ভিটামিন সি এবং ভিটামিন এ, যা আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে ।

2 thoughts on “জেনে নিন আম খাওয়ার ১০ টি উপকারিতা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *