কম্পিউটার প্রজন্ম কি?

কম্পিউটার প্রজন্ম হল একটি উচ্চপর্যায়ের গবেষণার ফলে তৈরি হওয়া একটি মডেল। এই মডেল বিশ্বের শক্তিশালী কম্পিউটারগুলি তৈরি করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি প্রায় সাধারণতত্ত্ব বিষয়ে নির্ভর করে, অর্থাৎ এটি কম্পিউটারের বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের উৎস হিসাবে কাজ করে। কম্পিউটার প্রজন্মের উন্নয়নের সময় কম্পিউটার আবিষ্কারের জন্য বিভিন্ন ধরনের পারদর্শী এবং খাতা ব্যবহার করা হয়েছে।

প্রতিটি প্রজন্মের বৈশিষ্ট্য একটি নির্দিষ্ট ব্যাপারটি বা বৈশিষ্ট্যটি দক্ষতা, স্থায়িত্ব, সংগ্রহশক্তি, পরিচয় সংশ্লিষ্টতা সহ অন্যান্য বিষয়গুলি প্রতিবিম্ব করে। এই প্রজন্ম সম্পর্কে আরও অনেক কিছু জানতে থাকতে পারেন।

কম্পিউটার প্রজন্ম এর আগমন

কম্পিউটার প্রযুক্তি এর সুবিধাতে আগমনটি মানবজটিকে একটি অানুকূল পাল্টানোর দিকে পথ নির্দেশ করেছে। এর পূর্বে গাণিতিক সমস্যাগুলো মানুষের জ্ঞান এবং কলম দিয়ে সমাধান করা হত। কিন্তু কম্পিউটারের সুবিধাকে দেখে জুড়ে মানুষ প্রথম থেকেই মনে করল একটি সুযোগ আছে এই প্রযুক্তিতে যা গুনাগুন বাড়বে। আধুনিক প্রযুক্তি দর্শনে কম্পিউটার একমাত্র সর্বাধিক ব্যবহার করা যাচ্ছে একটি উপকরণ হিসাবে।

কম্পিউটার এবং নেটওয়ার্ককে আরও সরবরাহকারী করে তোলার উপায় এখন খুব অনেক বেশি পাওয়া যাচ্ছে। নীচে কিছু প্রযুক্তি যা আধুনিককে বহুত আনন্দ এবং সুবিধা দিয়েছে তা দেখানো হলো।

সুইচ এবং বুলিয়ান লজিক

কম্পিউটার প্রজন্মের এগিয়ে এগিয়ে উন্নয়নের সাথে সাথে নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভব হচ্ছে। এই প্রযুক্তিগুলোর মধ্যে সুইচ এবং বুলিয়ান লজিক হল একটি মাধ্যম যা প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে অত্যল্প সময়ে ভালো ফল দেয়। সুইচ একটি উপাদান যা একটি সিস্টেমে প্রবেশ করলে এর স্থান পরিবর্তন হয়। অন্যদিকে বুলিয়ান লজিক একটি প্রক্রিয়া যা বুলিয়ান গেইট ব্যবহার করে তৈরি হয়।

এই প্রক্রিয়াটি সম্পাদন করে নিজের পছন্দ অনুযায়ী তালিকা তৈরি করা সম্ভব। নামটির উপর ভিত্তি করে, এটি হাঁটা বা না হাঁটা বা জোড়া বা না জোড়া থাকলে একটি সত্য বা মিথ্যা সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়। এই প্রযুক্তি সম্পর্কে অধিক জানতে, আপনি রেগুলার একাডেমিক কোর্স বা ওয়েব বেসড কোর্স এনরোল করতে পারেন।

স্টোরেজ ক্ষমতা

কম্পিউটার প্রজন্ম এর সঙ্গে সঙ্গে স্টোরেজ ক্ষমতা বেড়ে যাচ্ছে। আজ একটি কম্পিউটারে আপনি বিভিন্ন ধরণের ফাইল সংরক্ষণ করতে পারবেন যাতে আপনি প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহার করতে পারেন। আধুনিক স্টোরেজ মিডিয়া বেশ স্বল্প হয় এবং শক্তিশালী তথ্য প্রদর্শন করতে পারে। সঙ্গেই, আমরা আমাদের কম্পিউটারগুলির স্টোরেজ স্পেস বাড়াতে চাই।

ফাইল স্টোরেজেও তথ্য সংরক্ষণের জন্য সিএসএসডি (SSD) হল হার্ড ডিস্কের সাবস্টিটিউট। SSD দ্বারা আপনি শক্তিশালী কম্পিউট্যাশন অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করতে পারেন। এর জন্য আপনার কিছু দরকার হয়, যেমন প্রসেসর, এক্সট্রা র‍্যাম, মাদ্রাসা ইত্যাদি। তবে তারা আপনাকে একদম নতুন গেমস এবং অন্যান্য অ্যাপ্লিকেশন স্থাপন করতে দিতে পারে।

সেকেন্ডারিত স্টোরেজের জন্য সিডি ও ডিভিডির জন্য এখন ই কিছু প্রচুর স্বাপ খরচ না হওয়া সম্ভব। কোন সিস্টেমে কমপ্যাক্ট ডিস্ক বা USB ড্রাইভ ব্যবহার করতে পারেন এবং তাদের ব্যবহার ভাল উপায় সেটিংস কিংবা সফটওয়্যার সাধারণত স্বচ্ছ এবং বিশ্রাময়কর হয়। সবশেষে, কম্পিউটার প্রজন্ম এর স্টোরেজ ক্ষমতা সম্পর্কে ডিস্কাস্ত করতে হলে আপনার এর জন্য একটি ভাল চিত্র বসায় তুলুন। আপনি যদি একটি উচ্চ স্পেস সি ডি ডিস্ক যোগ করতে চান তবে নিশ্চিত হন যে আপনি একটি ভাল মানের ডিস্ক পেয়েছেন এবং সিরিল পোর্ট স্ট্যান্ডার্ডগুলি মেনে চলছেন।

See also  কম্পিউটারের প্রধান বৈশিষ্ট্য কয়টি ও কি কি?

সম্পূর্ণ করে বলতে গেলে, আমরা বার্তা দিচ্ছি যে আপনার কম্পিউটারে এটি ব্যবহারের জন্য আপনার পছন্দ মোতাবেক স্টোরেজ সিষ্টেমটি উপস্থাপন করতে পারবেন। আশা করছি আমাদের উপরের উক্তি আপনাকে সহজেই স্টোরেজ সিষ্টেম সম্পর্কে কিছু ধারণা দেয়ার সাথে সাথে আপনার বিভিন্ন কাজের জন্য একটি ভাল স্টোরেজ উপকরণ এর সিলেট করতে পারবে।

প്രথম এবং দ্বিতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার

কম্পিউটার প্রজন্ম এর সূচক সংখ্যা মূলত বাইনারি আকারে থাকতে থাকতে কম্পিউটার প্রজন্মের দুটি প্রথম এবং দ্বিতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার আমাদের সামনে উদ্ভাবিত হয়। প্রথম প্রজন্মের কম্পিউটার, যা প্রায় একশ বছর আগে উন্নয়ন করা হয়েছিল, একটি মেশিন ছিল যা কেবল গণনা প্রয়োগ করতে পারে। এর সাহায্যে কেবল পাঠ্য কিছু গণনা করা যেত। অন্য দিকে, দ্বিতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার, যা সাধারণত মাইনক্রাফ্ট রুপে পরিচিত।

এই কম্পিউটারগুলি নির্দিষ্ট টাস্ক সম্পাদন করতে সক্ষম হয়ে ওঠে এবং কম্পিউটার উন্নয়নের পর থেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সম্ভবত, এই দ্বিতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার জনপ্রিয়তার সাথে উন্নয়ন করা হয়েছিল এবং এটি এখন সম্পৃক্ত হয়ে আসা উন্নয়নগুলির মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

কম্পিউটার প্রজন্মের বিস্তারিত

কম্পিউটার প্রজন্ম একটি বিস্তৃত পরিবার, যা মুখ্য ভাবে উপাদানগুলির অধিকারী সিস্টেমের (System) জন্য একটি নির্দিষ্ট নথি সরবরাহ করে। মূল উপাদানগুলি হল: কেন্দ্রীয় প্রসেসিং ইউনিট (CPU), মেমোরি (Memory), ই/ও উপাদান (Input/Output devices) এবং স্টোরেজ (Storage devices)। কম্পিউটার কেন্দ্রীয় প্রসেসিং ইউনিট, কম্পিউটারের মোটর উপাদান, এখন উন্নয়নের পর প্রসেসরের স্পীড হাই এবং মিক্রোপ্রসেসরের এই স্পীডটি আরো উন্নয়ন হয়েছে। মেমোরি খানিজ উপাদানদ্বয়ের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ, এটি কম্পিউটারের ডাটা এবং কেন্দ্রীয় প্রসেসিং ইউনিটকে সরবরাহ করে।

এছাড়াও, ই/ও উপাদানগুলি এই তথ্য এবং কম্পিউটারের বাহিরের উপাদানগুলির মধ্যে তথ্য পাঠানোর দায়িত্ব পালন করে। স্টোরেজ উপাদানগুলি সিস্টেমে তথ্য সংরক্ষণ করে যা এর জন্য দ্রুত সম্পাদন করা জরুরি। সংক্ষিপ্তভাবে বলতে গেলে, কম্পিউটার প্রজন্ম হল সিস্টেমের উপাদানগুলি, যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিবর্তন এবং সাপোর্ট করে নেওয়া হয়।

তৃতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার

কম্পিউটার বা গণক সম্পূর্ণরূপে আমাদের জীবনের অংশ হিসেবে আততারিত হয়ে উঠছে। আমরা যেকোনো সেক্টরে এটি ব্যবহার করতে পারি এবং এর সাহায্যে দ্রুততা এবং সচেতনতা প্রাপ্ত করতে পারি। একটি কম্পিউটার সৃষ্টি হয়েছিল আবহাওয়া ও জ্যোতি চিত্র প্রজন্মের নামে। এই দুটি প্রজন্ম মানুষের চিত্র আকারে নির্মিত ছিল।

তবে তৃতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার আধুনিক যুগে উদ্ভূত হয়েছে। এটি একটি বিলক্ষণ যন্ত্র যা সমস্ত ধরনের কাজ করতে পারে। মানুষের মতো এর মধ্যেও মেমোরি, সেন্সর, স্টোরেজ এবং প্রোসেসর আছে। এই কম্পিউটার সেটুপ এবং অপারেট করতে খুব সহজ এবং আজকের প্রযুক্তির জীবনযাত্রার একটি অধিকরণ।

এটি একটি নানা কাজ করে এবং হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারগুলির অনুকূলে বহন করে। এর একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হল কোন ফাঁকা স্থানে কম ঝাঁক দিয়ে জমা যাবে। এটি শখের ঝুলির মতো সব কিছুই পার করে।”

See also  ফাইল ও ফোল্ডারের মধ্যে পার্থক্য কি?

চতুর্থ প্রজন্মের কম্পিউটার

কম্পিউটার এমন একটি যন্ত্র যা ইলেকট্রনিক্স এবং ওয়েবডস বিজ্ঞান ব্যবহার করে খুব সহজে তথ্য সংগ্রহ, স্বীকার এবং সাজানোর ক্ষমতা রাখে। বর্তমানে এটি প্রজন্মের উপর ভিত্তি করে তিনটি ভাগে বিভক্ত হয়ে থাকে। এগুলি হলো প্রথম প্রজন্ম, দ্বিতীয় প্রজন্ম এবং তৃতীয় প্রজন্ম। তবে আমরা ভালোভাবেই জানি আরেকটি প্রজন্ম রয়েছে যা চতুর্থ প্রজন্ম নামে পরিচিত।

চতুর্থ প্রজন্মের কম্পিউটার হলো কম্পিউটারের এমন একটি প্রজন্ম যা বৈদ্যুতিন লেয়ার, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং প্রেসফ্যাক্টর বিল্যুটিন এর মাধ্যমে পাওয়া হয়। এটি দ্রুত কাজ করতে পারে এবং শক্তিশালীও একটি মেশিন। একজন কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ হওয়ার জন্য চতুর্থ প্রজন্মের কম্পিউটার এর সাথে পরিচয় দিতে হবে। বিষয়টি সম্পর্কে আরও জানতে হলে আপনি বিভিন্ন ওয়েবসাইট এবং প্রকাশনাগুলি দেখতে পারেন যাসমানে চতুর্থ প্রজন্মের কম্পিউটার নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

জনপ্রিয় মাধ্যমে এই বিষয়টি সম্পর্কে প্রচারিত হয়েছে এবং এর উপর ভিত্তি করে প্রযুক্তির বিভিন্ন নতুন এবং উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করা হচ্ছে। কম্পিউটার প্রজন্মের উন্নয়ন কাজ সম্পর্কে আরও জানতে হলে সমস্যার উত্তর হিসাবে চতুর্থ প্রজন্মের কম্পিউটার একটি ভালো উদাহরণ।

পঞ্চম প্রজন্মের কম্পিউটার

যেভাবে মানবসম্প্রদায়ের পাঁচটি প্রজন্ম আছে, ঠিক তেমনি কম্পিউটার ও পাঁচটি প্রজন্মে ভাগ হয়। প্রথম প্রজন্মের কম্পিউটার হল মেকিন্টশ, যা ১৯৭৭ সালে প্রকাশিত হয়। এটি বহুল পরিচিত ও ব্যবহৃত কম্পিউটার হিসাবে পরিচিত। এরপর আসা হল দ্বিতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার যা IBM কর্পোরেশন তৈরি করে।

তৃতীয় প্রজন্মের কম্পিউটার হল ইকস্কিউব, যা ১৯৮১ সালে মুক্তি পান। এটি বিশেষভাবে কম্পিউটার প্রোগ্রামিং এর জন্য ব্যবহৃত হয় এবং ডেটাবেস সিস্টেম ঌদ্বংশ উত্পাদন করে। চতুর্থ প্রজন্মের কম্পিউটার প্রথম পারালেল প্রোসেসিং সুযোগ সহ থাকে, এটি বর্তমানে একটি ব্লেড সার্ভার হিসাবে পরিচিত। তবে, পঞ্চম প্রজন্মের কম্পিউটার, যা আধুনিক জীবনে সম্পর্কিত ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়, তা বর্তমানে উপস্থিত আমাদের ফোন, ট্যাব এবং ল্যাপটপ সহ খুবই সাধারণ হয়ে গিয়েছে।

এগুলি প্রায়শই পাঁচটির প্রজন্মের রক্ষণাবেক্ষণ হারিয়ে যায়, কারণ এগুলি অধিকাংশই প্রযুক্তিগত ও ব্যবহার সুবিধাজনক কম্পিউটার অঙ্গগুলি সংযোজন করতে পারে। প্রতিটি প্রজন্মের কম্পিউটার তার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য নিয়ে গর্ব করে এবং নতুন সমস্যার সমাধানে কাজ করে। তবে কম্পিউটারের প্রজন্ম বিশেষভাবে একই নয় এটি সেটির লক্ষ্য সম্পর্কে একটি জনপ্রিয় ধারণা বিদ্যমান, যা দেখা যায় নয়।”

উপসংহার

কম্পিউটার একটি মেশিন যা ডেটা প্রক্রিয়া করতে ব্যবহৃত হয়। এই ডেটা সেন্সর বা উপকরণ থেকে গ্রহণ করা হয় এবং এটি সংশ্লিষ্ট কম্পিউটার সিস্টেমে সেভ করা হয়। কম্পিউটারের মূল কাজ হলো ডেটার আবিষ্কার এবং প্রক্রিয়া করা, তারপর যে রেজাল্টটি প্রকাশিত হয় সেটি ব্যবহারকারীদের জানানো। আজ কম্পিউটার আমাদের জীবনের এক অপরিহার্য অংশ হিসাবে জানা হয়, যার মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন ধরনের প্রযুক্তি আবিষ্কার করে থাকি এবং বিভিন্ন কাজ করতে পারি যেমন ডেটা এন্ট্রি, কম্পিউটার গেম খেলা, ডিজাইন করা এবং এক্সেল শিট তৈরি করা।

কম্পিউটার প্রজন্ম এমন একটি প্রযুক্তি যা যাবতীয় জীবনকে সহজ এবং সম্ভবত সংশ্লিষ্ট করে তুলে ধরতে সাহায্য করে।

Leave a Comment