তেঁতুল খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা কি

তেঁতুল খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

স্বাস্থ্য

তেঁতুলএই ফলটির নাম শুনলেই জিভে জল আসে । টক-জাতীয় খাবার যাদের খুব পছন্দ, তাঁদের পছন্দের খাবারের তালিকায় যে তেঁতুল/তেঁতুলের আচার থাকবেই সেকথা বলাই বাহুল্য। অনেকে ভাবেন যে, তেঁতুল খেলে শরীরের একাধিক ক্ষতি হতে পারে। কিন্তু, আপনি জানেন কী তেঁতুল শরীরে অনেক সমস্যাকে দূরে রাখতে সাহায্য করে। জেনে নিন শরীরের কোন কোন সমস্যায় তেঁতুল খাওয়ার উপকারিতা

১) আপনার যদি পেট ফাঁপা এবং বদহজমের সমস্যা থাকে, তাহলে সকালে বাসি তেঁতুল এক কাপ জলে ভিজিয়ে তাতে সামান্য নুন এবং চিনি বা গুড় মিশিয়ে খেলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

২) সকলেই কম বেশি জানেন যে, গর্ভাবস্থায় গর্ভবতী মায়েদের তেঁতুল খাওয়ার একটা প্রবণতা দেখা যায়। আসলে তেঁতুল বমি বমি ভাব কাটাতে সাহায্য করে বলেই গর্ভবতী মায়েরা তেঁতুল খেতেপছন্দ করেন।

৩) ভিটামিন সি-এর ভালো উৎস তেঁতুল। শরীরে ভিটামিন সি-এর ঘাটতি পুরুনে কার্যকর ভূমিকা রাখে তেঁতুল । শরীরে ভিটামিন সি-এর ঘাটতি থাকলে খেতে পারেন তেঁতুল।

৪) অন্যান্য ফলের তুলনায় পাকা তেঁতুলে খনিজের পরিমাণ বেশি। তাই পাকা তেঁতুল খেলে শরীরে অতি প্রয়োজনীয় খনিজের অভাব পূরণ হয়।

৫) ছোট শিশুদের কৃমির সমস্যা খুবই পরিচিত একটি সমস্যা। তেঁতুল কিন্তু এই কৃমিনাশক হিসাবে খুব ভালো কার্যকর ভুমিকা রাখে ।

৬) হজমের সমস্যা সারাতে তেঁতুল কতখানি উপকারিতা রয়েছে সে কথা আগেই বলা হয়েছে। কিন্তু, জানেন কী যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা রয়েছে, তাঁরাও তেঁতুল খেলে খুব ভালো উপকার পাবেন।

৭) যাদের রক্তে সুগার মাত্রা বেশি, অর্থাৎ ডায়াবেটিস-এ আক্রান্ত তাঁরাও খাদ্যতালিকায় তেঁতুল রাখতেই পারেন। এর মধ্যে থাকা এনজাইম রক্তে সুগার পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে।

৮) তেঁতুলের ভিটামিন-সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে, ফলে সর্দি-কাশীর মতো সমস্য়া থেকে খুব সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়।

৯) মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে 10 গ্রাম তেঁতুল এক গ্লাস জলে ভিজিয়ে রাখুন। ম্যাশ করে চালুন। এতে চিনি মিশিয়ে পান করা পিত্তর ব্যাধিজনিত মাথাব্যথা নিরাময়ে সহায়তা করে.

১০)চোখের নীচে বা তার উপরে পুতুলের লালচে পড়াকে গুহেরি বলা হয়। এতে তেঁতুলের বীজ (এমালি) জলে দিয়ে ঘষে নিতে হবে এবং চন্দনের কাঠের মতো প্রয়োগ করতে হবে। এটি চোখের গুহেরিতে (বিলানী) চোখের ত্বকে তাত্ক্ষণিক ত্রাণ সরবরাহ করে.

১১) তেঁতুলের ফলের রস বা জাম্বি লেবুর রসে গরম করে তেল 1-2 ফোঁটা কানের ব্যথা নিরাময় করে.

১২) জলে তেঁতুল যোগ করুন এবং ভাল করে ম্যাশ করুন। এটি দিয়ে গার্গল করা আলসারের মতো মুখের আলসার সমস্যায় সহায়তা করে.
১৩) সাইনাসের প্রাথমিক পর্যায়ে তেঁতুলের পাতার রস উপকারী.

১৪) তেঁতুলে 1 ভাগ, হলুদের 1 ভাগ, সেরগেরাসের তিন ভাগ এবং পুনর্ণার এক অংশ এবং নয়টি অংশ ক্যাস্টার করে হালকা করে নিন। এটি ধোঁয়াশা কাশি থেকে মুক্তি দেয়.

১৫) চিনি ক্যান্ডির সাথে তেঁতুলের শরবত পান করা বুকের জ্বলন সংবেদীতে উপকারী। আরও ভাল প্রতিকারের জন্য দয়া করে একজন আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকের পরামর্শ নিন.

১৬) সকালে 10 গ্রাম তেঁতুলের বীজ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। অভ্যন্তরের সাদা ঘাসটি খোসা ছাড়িয়ে রাতে গরুর দুধ দিয়ে পিষে নিন। এটি ঘন ঘন প্রস্রাবের সমস্যা থেকে উপকৃত হবে.

১৭) তেঁতুলের ঔষধি গুণগুলি স্নায়ুতন্ত্রের উন্নতি করে, হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণ করতে কাজ করতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, তেঁতুলে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়। আসলে, ক্যালসিয়াম স্নায়ুতন্ত্রের কার্যকারিতা উন্নত করতে কিছুটা সহায়ক হতে পারে।

তেঁতুল সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন :


তেঁতুল কি প্রতিদিন খাওয়া যায়?
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লুএইচও) তেঁতুলের ফলটিকে নিরাপদ এবং অ-বিষাক্ত বলে বিবেচনা করা হয়, প্রতিদিন ভারসাম্য পরিমাণে গ্রহণ করা যায়। তবে এটি ব্যক্তির স্বাস্থ্যের উপরও নির্ভর করে। ভারসাম্যহীন পরিমাণ তেঁতুল খেলে ক্ষতি হতে পারে, যেমন নিবন্ধে উল্লেখ করা হয়েছে।

তেঁতুল কি ঘুমের উন্নতি করতে পারে?
কিছু লোক বিশ্বাস করে যে তেঁতুলের মধ্যে পাওয়া ম্যাগনেসিয়াম ঘুমকে উৎসাহ দিতে সাহায্য করতে পারে। তেঁতুলের উপকারের মধ্যে উন্নত ঘুম অন্তর্ভুক্ত থাকে তবে বৈজ্ঞানিক প্রমাণের অভাব রয়েছে।

তেঁতুল ব্যবহার করে কিডনিতে পাথর গলানো কি সম্ভব?
তেঁতুল সেবনের ফলে কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কিছুটা কমে যেতে পারে। অবশ্যই ডাক্তার পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করুন

তেঁতুল কি মাইগ্রেনের পক্ষে ভাল?
তেঁতুল মাইগ্রেনকে সাহায্য করতে পারে তা প্রমাণ করার জন্য বৈজ্ঞানিক প্রমাণের অভাব রয়েছে। এই বিষয়ে অবশ্যই ডাক্তার পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করুন

তেঁতুল জলের উপকারিতা কী কী?
নিবন্ধে উল্লেখ করা হয়েছে যে তেঁতুলের সজ্জার জলীয় নিষ্কাশনে (অ্যান্টি-স্থূলত্ব) গুন রয়েছে । তেঁতুলের জল খাওয়ার উপকারিতা জানতে নিবন্ধটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন.

তেঁতুলের চা কি আরও উপকারী?
“তেঁতুল চা একরকম সেরা উপায় তেঁতুলের চা। তেঁতুলের চায়ের উপকারীতা পাওয়া যাবে। বিশ্বাস করা হয় যে এটি জল থেকে পান করার মাধ্যমে আপনি এর উত্তোলন থেকে উপকৃত হতে পারবেন।”। “এখনই, এর জন্য সুনির্দিষ্ট বৈজ্ঞানিক গবেষণা প্রয়োজন” “

আমাদের শেষ কথা
আমি আশা করি আপনি অবশ্যই একটি Article পছন্দ করেছেন । আমি সর্বদা এই কামনা করি যে আপনি সর্বদা সঠিক তথ্য পান। এই পোস্টটি সম্পর্কে আপনার যদি কোনও সন্দেহ থাকে তবে আপনাকে অবশ্যই নীচে মন্তব্য করে আমাদের জানান। শেষ অবধি, যদি আপনি Article পছন্দ করেন (তেঁতুলের উপকারিতা), তবে অবশ্যই Article টি সমস্ত Social Media Platforms এবং আপনার বন্ধুদের সাথে Share করুন।

1 thought on “তেঁতুল খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *